ঝুঁকিপূর্ণ ভবনসমূহ রেট্রোফিটিংসের মাধ্যমে ভূমিকম্প সহনীয় করার লক্ষ্যে কার্যক্রম চলমান - ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী

প্রথম পাতা » ছবি গ্যালারী » ঝুঁকিপূর্ণ ভবনসমূহ রেট্রোফিটিংসের মাধ্যমে ভূমিকম্প সহনীয় করার লক্ষ্যে কার্যক্রম চলমান - ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী
বৃহস্পতিবার, ১৭ জুন ২০২১



---

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডাঃ মোঃ এনামুর রহমান বলেছেন, ঝুঁকিপূর্ণ
ভবনসমূহ রেট্রোফিটিংস -এর মাধ্যমে ভূমিকম্প সহনীয় করার লক্ষ্যে কার্যক্রম
চলমান রয়েছে। তিনি বলেন, ভূমিকম্পে প্রাণহানি ও সম্পদের ক্ষয়ক্ষতি কমাতে ইতিমধ্যে দেশের
ছয়টি সিটি করপোরেশন ও তিনটি জেলার ভূমিকম্প ঝুঁকি মানচিত্র তৈরি করা হয়েছে। ভূমিকম্পসহ
যেকোনো দুর্যোগ থেকে উত্তরণের জন্য জাতীয় কন্টিনজেন্সি প্ল্যানও তৈরি করা হয়েছে।
ভূমিকম্প সহনশীল ভবন নির্মাণে বিল্ডিং কোড হালনাগাদকরণের লক্ষ্যে গৃহায়ন ও গণপূর্ত
মন্ত্রণালয়ের সাথে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয় একযোগে কাজ করছে।
প্রতিমন্ত্রী আজ সিলেট জেলা পরিষদ মিলনায়তনে আয়োজিত ভূমিকম্প ঝুঁকি হ্রাস বিষয়ক
অবহিতকরণ সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন।
দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব মোঃ মোহসীনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে
বক্তৃতা করেন বাংলাদেশ প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট) এর অধ্যাপক ড. তাহামিদ
এম আল হোসাইন, সিলেটের শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ড. জহির
বিন আলম, আহসানউল্লাহ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ডক্টর শারমিম রেজা
চৌধুরী, গণপূর্ত বিভাগের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী রফিকুল ইসলাম, আবহাওয়া অধিদপ্তরের
পরিচালক শামসুদ্দিন আহমেদ, ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স এর মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার
(অব.) জেনারেল সাজ্জাদ হোসাইন, সিলেট সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আরিফুল হক এবং সিলেট জেলা
আওয়ামী লীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এডভোকেট মোঃ লুৎফুর রহমান।
প্রতিমন্ত্রী বলেন, ভূমিকম্প এমন একটি প্রাকৃতিক দুর্যোগ যার পূর্বাভাস দেওয়ার উপায়
এখনো বের করা যায়নি। আমাদের দেশের প্রধান প্রধান শহরগুলোতে মানুষ বাড়ার পাশাপাশি
আবাসিক-অনাবাসিক স্থাপনা বাড়ছে পাল্লা দিয়ে। কিন্তু এসব স্থাপনা কতটা মানসম্পন্ন, বড়
ধরনের ভূমিকম্পে সেগুলো টিকে থাকবে কিনা এই আশঙ্কা প্রবল। ভূমিকম্পের মতো দুর্যোগে
নিরাপদ আশ্রয় হিসেবে প্রয়োজনীয় খোলা জায়গাও নেই আমাদের বড় শহরগুলোতে। অভিযোগ রয়েছে
দেশে ভবন নির্মাণে বিল্ডিং কোড মানা হয় না। ফলে মাঝারি ধরনের ভূমিকম্পও বিপর্যয়ের কারণ
হতে পারে। আর বড় ধরনের ভূমিকম্প ডেকে আনতে পারে ভয়াবহ মানবিক বিপর্যয়। তাই ভূমিকম্পের
বিপর্যয় থেকে রক্ষা পেতে সব ধরনের অবকাঠামো দুর্যোগ মোকাবেলার উপযোগী করে গড়ে তুলতে
কার্যক্রম চলমান রয়েছে।
ডাঃ এনামুর রহমান বলেন, বড় ধরনের ভূমিকম্পে ক্ষয়ক্ষতি কতটা নিয়ন্ত্রণে রাখা যাবে
তা বলা মুশকিল, তবে প্রস্তুতি থাকলে মোকাবিলা করতে সুবিধা হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার
সরকার সে কাজটাই করে যাচ্ছে। এ জন্য দল-মত নির্বিশেষে সকলের সহযোগিতা কামনা করেন
তিনি।

সভাপতির বক্তৃতায় মন্ত্রণালয়ের সচিব মোঃ মোহসীন বলেন, বর্তমানে দেশে ভূমিকম্পন
পরিমাপের জন্য ১০টি স্টেশন রয়েছে। জাপান থেকে ভূমিকম্প ও সুনামি বিষয়ে টোকিও’র GRIPS
ইউনিভার্সিটি থেকে মাস্টার্স অব ডিজাস্টার ম্যানেজমেন্টে ২ বছরের কোর্স সমাপ্ত করে ৪ জন
বিজ্ঞানীর মধ্যে ১ জন সিলেট স্টেশনে কর্মরত আছেন। ভূমিকম্পসহ অন্যান্য দুর্যোগে দ্রুত
উদ্ধার ও অনুসন্ধান কার্যক্রম পরিচালনার জন্য অ্যাকোয়াটিক সি সার্চবোট, মেরিন রেস্কিউ
বোট, মেগাফোন সাইরেনসহ প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম, যন্ত্রপাতি ও যানবাহন ফায়ার সার্ভিস ও
সিভিল ডিফেন্স অধিদপ্তর এবং সশস্ত্র বাহিনী বিভাগসহ সংশ্লিষ্ট অন্যান্য প্রতিষ্ঠানকে
প্রদান করা হয়েছে। এ কার্যক্রম সহজ করার জন্য আরো অত্যাধুনিক যন্ত্রপাতি ও সরঞ্জামাদি
সংগ্রহের কার্যক্রম চলমান রয়েছে।

বাংলাদেশ সময়: ২২:০৩:০৬   ৬৪ বার পঠিত  




পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)

ছবি গ্যালারী’র আরও খবর


সরকার স্টার্টআপ সংস্কৃতি গড়ে তুলতে নতুন নতুন কর্মসূচি বাস্তবায়ন করছে - পলক
লেবাননের নতুন প্রধানমন্ত্রী হলেন নাজিব মিকাতি
করোনা প্রতিরোধে গ্রাম পর্যায়ে মনিটরিং বাড়াতে হবে - ইকবালুর রহিম
গ্রুপ ভিত্তিক ৩টি নৈর্বাচনিক বিষয়ে পরীক্ষার সময় ও নম্বর কমিয়ে এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার সিদ্ধান্ত
‘এনজিও কনসোর্টিয়াম’র নিবন্ধন বাতিল, আর্থিক লেনদেন না করার আহ্বান
দক্ষিণ কোরিয়ার ইয়নসে বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘বঙ্গবন্ধু কর্নার’ উদ্বোধন
বিশ্বমানব পাচার প্রতিরোধ দিবস উপলক্ষে ওয়েবিনার
বাংলাদেশে খাদ্য নিরাপত্তায় অভূতপূর্ব সাফল্য অর্জিত হয়েছে - কৃষিমন্ত্রী
বিএনপি’র পরিকল্পিত লকডাউনটা কি? - তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রীর প্রশ্ন
দেশে আরো তিনটি নতুন উপজেলা করার অনুমোদন

আর্কাইভ