প্রস্তাবিত বাজেট দরিদ্র বান্ধব জনকল্যাণমুখী : সরকারি দল

প্রথম পাতা » ছবি গ্যালারী » প্রস্তাবিত বাজেট দরিদ্র বান্ধব জনকল্যাণমুখী : সরকারি দল
বুধবার, ২২ জুন ২০২২



---

ঢাকা, ২২ জুন, ২০২২ : জাতীয় সংসদে ২০২২-২০২৩ অর্থ বছরের বাজেট আলোচনায় অংশ নিয়ে সরকারি দলের সদস্যরা প্রস্তাবিত বাজেটকে দরিদ্র বান্ধব জনকল্যাণমুখী বলে উল্লেখ করেছেন।
গত ৯ জুন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল সংসদে ৬ লাখ ৭৮ হাজার ৬৪ কোটি টাকার এ বাজেট প্রস্তাব পেশ করেন। এর আগে গত ১৩ জুন সংসদে চলতি অর্থ বছরের সম্পূরক বাজেট পাস করা হয়।
বাজেটের ওপর আলোচনায় আজ অংশ নেন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী জাহিদ মালেক, রেলপথ মন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন, বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মাহবুব আলী, ধর্ম প্রতিমন্ত্রী ফরিদুল হক খান, হুইপ শামসুল হক চৌধুরী, সরকারি দলের আবুল কালাম আজাদ, এ বি তাজুল ইসলাম, নজরুল ইসলাম বাবু, বজলুল হক হারুন, ইলিয়াস উদ্দিন মোল্ল্যা, সলিম উদ্দিন তরফদার, বদরুদ্দোজা মো. ফরহাদ হোসেন, আতাউর রহমান, আনোয়ার হোসেন খান, মো. আইনউদ্দিন, মৃনাল কান্তি দাস, শামীমা আখতার খানম, নাহিদ এজহার খান, নজরুল ইসলাম চৌধুরী, জাতীয় পার্টির রুস্তম আলী ফরাজী, নাসরিন জাহান রতœা, নুরুল ইসলাম তালুকদার, জাসদের শিরীন আখতার এবং বিএনপির গোলাম মোহাম্মদ সিরাজ।
আলোচনায় অংশ নিয়ে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী বলেন, প্রস্তাবিত বাজেট বিএনপির ২০০৫ সালের বাজেটের চেয়ে ১১ গুণ বৃহৎ। দেশের জিডিপি আকার বর্তমানে ৪০ লাখ কোটি টাকা, বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ৪৮ বিলিয়ন ডলার। একই ভাবে সকল উন্নয়ন সূচক সর্বকালের রেকর্ড। তিনি বলেন, এ বাজেটে কোন নিত্য পণ্যের ওপর করারোপ করা হয়নি। বরং অনেক জরুরি পণ্য ও খাতকে কর অবকাশ দেয়ার প্রস্তাব দেয়া হয়েছে। অন্যদিকে বাজেটে বিলাস দ্রব্য ও খাতের ওপর কর বৃদ্ধি করা হয়েছে। বর্তমান বৈশ্বিক পরিস্থিতিতে এটা অত্যন্ত বাস্তবসম্মত।
আলোচনায় মন্ত্রী স্বাস্থ্য খাতে বিগত ১৩ বছরের কর্মকান্ড ও সাফল্য তুলে ধরেন। এছাড়া জনগণের স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করতে নেয়া বিভিন্ন কার্যকর পদক্ষেপের কথা তুলে ধরেন। মন্ত্রী স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে বরাদ্দ বাড়ানোর আহবান জানান। বিশেষ করে থোক বরাদ্দ ৫ হাজার কোটি টাকা থেকে বাড়িয়ে ১০ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ দেয়ার প্রস্তাব দেন।
আলোচনায় অংশ নিয়ে রেলপথ মন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন বাজেটকে উন্নয়নের দিকনির্দেশনা বলে উল্লেখ করে বলেন, এ বাজেটে দেশে একটি ভারসাম্যপূর্ণ যোগাযোগ ব্যবস্থা গড়ে তুলতে পর্যাপ্ত বরাদ্দ রাখা হয়েছে। বিশেষ করে জনগণের সাশ্রয়ী ও সুলভ যাতায়াত মাধ্যম রেল ব্যবস্থার উন্নয়নে এ সরকার শুরু থেকেই উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। এর অংশ হিসাবে রেলপথ মন্ত্রণালয় আলাদা করা হয়েছে। গত ১৩ বছরে এ খাতের ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে। যার ফলে রেল ব্যবস্থা এখন আগের চেয়ে উন্নত হয়েছে।
তিনি বলেন, আগামীতে বেশ ক’টি মেগা প্রকল্প বাস্তবায়ন শেষ হলে দেশের রেল ব্যবস্থা অতীতের যে কোন সময়ের তুলনায় অনেক বেশী উন্নত হবে। বিশেষ করে পদ্মা সেতুতে রেলপথ সংযুক্তি, চট্টগ্রাম - কক্সবাজার রেল যোগাযোগ প্রতিষ্ঠাসহ আরো বেশ কয়েকটি প্রকল্প বাস্তবায়নাধীন রয়েছে। এসব প্রকল্প শেষ হলে দেশে একটি শক্তিশালী রেল যোগাযোগ ব্যবস্থা গড়ে উঠবে। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে তার মন্ত্রণালয় দেশের রেল যোগাযোগ ব্যবস্থাকে শক্তিশালী ভিতের ওপর প্রতিষ্ঠা করতে নিরলসভাবে কাজ করছে।
বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মাহবুব আলী প্রস্তাবিত বাজেটকে জনগণের বাজেট হিসেবে উল্লেখ করে গত ১৩ বছরে সব খাতে অর্জিত সাফল্যের চিত্র তুলে ধরেন। বিশেষ করে গত ২ বছরে বৈশ্বিক করোনার ছোবল শেখ হাসিনার সরকার অত্যন্ত সাফল্যের সাথে যে মোকাবেলা করছে তা তুলে ধরেন।
তিনি বলেন, করোনায় বিশ্বে সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত খাত হচ্ছে বিমান ও পর্যটন খাত। বাংলাদেশও এর বাইরে ছিল না। তারপরও বাংলাদেশ বিমান করোনাকালে ফ্লাইট চলাচল অব্যাহত রাখে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশ বিমানকে ১ হাজার কোটি টাকা ঋণ প্রণোদনা দিয়েছেন। প্রতিমন্ত্রী জানান, এ প্রণোদনা থেকে বিমান ৮৭০ কোটি টাকা ব্যয় করে। ইতোমধ্যে সুদসহ এ অর্থ পরিশোধ করা হয়েছে।
প্রতিমন্ত্রী জানান, বাংলাদেশ বিমান ২০২১ সালের নভেম্বর থেকে মে ২০২২ পর্যন্ত মোট মুনাফা করেছে ৪ হাজার ৫৪৬ কোটি টাকা, ভ্যাট, কর, ঋণ পরিশোধের পর এ সময়ে বিমানের নীট মুনাফা হয়েছে ২৮৯ কোটি টাকা। এছাড়া পর্যটন খাতেও সব ব্যয় পরিশোধের পর এ সময়ে নীট মুনাফা হয়েছে ৭ কোটি ৯ লাখ ৯ হাজার টাকা।
তিনি বলেন, ২০২৩ সালের সেপ্টেম্বরে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে দ্বিতীয় টার্মিনাল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উদ্বোধন করবেন বলে আশা করা হচ্ছে। এছাড়া পর্যটন শিল্পকে আরো উন্নত করতে কক্সবাজার বিমানবন্দরসহ বেশ কয়েকটি প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হচ্ছে।
ধর্ম প্রতিমন্ত্রী ফরিদুল হক খান বাজেটকে জনকল্যাণমুখী উল্লেখ করে বলেছেন, প্রস্তাবিত বাজেটে বর্তমান বৈশ্বিক পরিস্থিতি মোকাবেলায় বাস্তবানুগ ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। বিশেষ করে মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে বিভিন্ন ব্যবস্থা রাখা হয়েছে।
তিনি বর্তমান সরকারকে ধর্মবান্ধব বলে উল্লেখ করে বলেন, শেখ হাসিনা সরকার আমলে বাংলাদেশ ধর্মীয় সম্প্রতির এক আবাস হিসেবে বিশ্বে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। এখানে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিশ্বে উদাহরণ সৃষ্টি করেছে।
আলোচনায় অংশ নিয়ে সরকার দলের অন্য সদস্যরা বলেন, শেখ হাসিনা দেশ পরিচালনায় সর্বক্ষত্রে শতভাগ সাফল্য অর্জন করে বিশ্বের কাছে উন্নয়নের রোল মডেল হিসেবে বাংলাদেশকে প্রতিষ্ঠিত করেছেন। বিশেষ করে ১৩ বছরে এ সরকারের দেয়া সব বাজেট গড়ে ৯১ ভাগের বেশী বাস্তবায়ন করা সম্ভব হয়েছে। এ বাজেটও সফলভাবে বাস্তবায়িত হবে।
তারা বলেন, বিশ্ব ব্যাংকের রক্তচক্ষুকে তোয়াক্কা না করে নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মাসেতু সেতু নির্মাণ করে বিশ্বকে চমকে দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। ২৫ জুন এ সেতু উদ্বোধনের মাধ্যমে জনগণের দীর্ঘ দিনের স্বপ্ন বাস্তবায়ন হতে যাচ্ছে।
সরকারি দলের সদস্যরা আরো বলেন, বৈশ্বিক মহামারির সংক্রমণের সাথে সাথে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সময়োচিত পদক্ষের ফলে সফলভাবে করোনা মোকাবেলা করা সম্ভব হয়েছে। তার বলিষ্ঠ ও দূরদর্শী পদক্ষেপে দেশের আর্থ-সামাজিক কর্মকান্ড সচল রেখে উন্নয়ন অগ্রগতি সচল রাখা সম্ভব হয়েছে। তাঁর সাহসী পদক্ষেপ বিশ্বে প্রশংসিত হয়েছে।

বাংলাদেশ সময়: ২২:৩৮:৫৩   ১৩ বার পঠিত  




পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)

ছবি গ্যালারী’র আরও খবর


সরিষাবাড়ীতে সাম্প্রতিক বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত বন্যার্তদের মাঝে ত্রাণসামগ্রী বিতরণ
পদ্মা সেতু কোরবানিকেন্দ্রিক অর্থনীতিতে ব্যাপক প্রভাব ফেলেছে : মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী
ওডেসার আবাসিক ভবনে ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে ১৭ জন
নিউইয়র্কে বাংলাদেশ-যুক্তরাষ্ট্র গোলটেবিল বৈঠক
উন্নয়নের দিশারী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা - নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী
ঐশ্বরিয়ার সঙ্গে রোমান্স করাটা ভাগ্যের ব্যাপার
সুনামগঞ্জে বন্যায় ১৮০০ কোটি টাকার ক্ষতি
সুইডেন-ফিনল্যান্ডের ন্যাটোয় যোগদান ‘ঐতিহাসিক’
শ্রীলঙ্কাকে দশ উইকেটে হারাল অস্ট্রেলিয়া
ফেরিতে ভয়ঙ্কর জার্নি, অসুস্থ হয়ে পড়েছেন বাংলাদেশি ক্রিকেটাররা

আর্কাইভ