প্রস্তাবিত বাজেট উন্নয়ন ও জনগণের স্বার্থবান্ধব : সরকারি দল

প্রথম পাতা » ছবি গ্যালারী » প্রস্তাবিত বাজেট উন্নয়ন ও জনগণের স্বার্থবান্ধব : সরকারি দল
মঙ্গলবার, ২১ জুন ২০২২



---

ঢাকা, ২১ জুন, ২০২২ : জাতীয় সংসদে ২০২২-২০২৩ অর্থ বছরের বাজেট আলোচনায় অংশ নিয়ে সরকারি দলের সদস্যরা প্রস্তাবিত বাজেটকে উন্নয়ন ও জনগণের স্বার্থবান্ধব বলে উল্লেখ করেছেন।
গত ৯ জুন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল সংসদে ৬ লাখ ৭৮ হাজার ৬৪ কোটি টাকার এ বাজেট প্রস্তাব পেশ করেন। এর আগে গত ১৩ জুন সংসদে চলতি অর্থ বছরের সম্পূরক বাজেট পাস করা হয়।
আজ বাজেটের ওপর আলোচনায় আজ অংশ নেন ভূমি মন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী, শিল্প প্রতিমন্ত্রী কামাল আহমেদ মজুমদার, সরকারি দলের মোহাম্মদ ফারুক খান, মুহাম্মদ শফিকুর রহমান, অসীম কুমার উকিল, নুরন্নবী চৌধুরী, এ কে এম ফজলুল হক, শফিকুল আজম খান, মেহের আফরোজ চুমকি, সৈয়দা জোহরা আলাউদ্দিন, সুবর্ণা মোস্তফা, সৈয়দা জাকিয়া নূর, বেগম কানিজ ফাতেমা আহমেদ, জাতীয় পার্টির রওশন আরা মান্নান, বেগম শরীফা কাদের, পনির উদ্দিন আহমেদ এবং ওয়ার্কার্স পার্টির ফজলে হোসেন বাদশা।
আলোচনায় অংশ নিয়ে ভূমি মন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী বাজেটকে সময়োপযোগী, বাস্তবায়নযোগ্য এবং বর্তমান বৈশ্বিক পরিস্থিতিতে চ্যালেঞ্জ মোকাবেলার উপযোগী বলে উল্লেখ করেন। তিনি বলেন, এ বাজেট উন্নয়ন ও জনবান্ধব বলেই অন্য সরকারের বাজেটের মতো মাঠে ময়দানে এর তেমন সমালোচনাও নাই। যে সমালোচনা হচ্ছে তা শুধুমাত্র সমালোচনার জন্য সমালোচনা।
তিনি বাংলাদেশ শ্রীলংকা হবে বলে বিএনপির দেয়া বক্তব্যের জবাবে বলেন, শ্রীলংকার পরিস্থিতি আর বাংলাদেশের পরিস্থিতি এক নয়। শ্রীলংকার অর্থনীতির একটা বড় অংশ পর্যটন শিল্পের আয়ের উপর নির্ভরশীল। করোনা মহামারী আর সেখানে বোমা হামলার কারণে দেশটির পর্যটন শিল্পে মারাত্মক বিরূপ প্রভাব পড়ায় আয় প্রায় বন্ধ হয়ে যায়। তার ওপর কৃষি উৎপাদন অনেক কমে যায়। এর সাথে অন্যান্য অনুসঙ্গ যোগ হয়ে শ্রীলংকার আজকের পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। কিন্তু বাংলাদেশের বর্তমান পরিস্থিতির দিকে তাকালে দেখা যাবে এ দেশ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে গত ১৩ বছরে খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ, এমনকি খাদ্যে উদ্বৃত্তের দেশে পরিণত হয়েছে। পাশাপাশি বৈশ্বিক মহামারি করোনার সময়েও অর্থনীতির চাকা সচল রেখে বাস্তব পদক্ষেপ নেয়ার ফলে বাংলাদেশ দ্রুত ঘুরে দাঁড়াতে সক্ষম হয়েছে। বাংলাদেশ রফতানি আয়ের ধারাবাহিকতাও বজায় রাখতে সক্ষম হয়েছে। আর রেমিট্যান্স প্রবাহেও তেমন প্রভাব পড়েনি। এ প্রবাহ এখন পর্যন্ত স্বাভাবিক রয়েছে। তাছাড়া বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভও নিরাপদ অবস্থানে রয়েছে। ফলে বাংলাদেশ শ্রীলংকার মতো পরিস্থিতিতে পড়ার আশংকা নেই।
তিনি বলেন, সর্বোপরি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতে দেশের নেতৃত্ব যতদিন থাকবে ততদিন দেশ নিরাপদ থাকবে। যদি তাঁর হাতে দেশ নিরাপদ না থাকে, তাহলে আর কারো পক্ষে এ দেশ নিরাপদ রাখা সম্ভব নয়।
শিল্প প্রতিমন্ত্রী কামাল আহমেদ মজুমদার বলেছেন, সফলভাবে করোনা মোকাবেলার পর রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের প্রভাবের ফলে সৃষ্ট বিরাট মূল্যস্ফীতি মোকাবেলার দিকনির্দেশনা এ বাজেট। বাজেটে মূল্যস্ফীতির চ্যালেঞ্জ মোকাবেলার বাস্তব পদক্ষেপের কথা বলা হয়েছে।
তিনি তার মন্ত্রণালয়াধীন এস এম ই খাতকে আরো গুরুত্ব দেয়ার আহবান জানান। এখাতে বাজেটে বরাদ্দ নেই উল্লেখ করে তিনি এসএমই খাতে বরাদ্দ দেয়ার সুপারিশ করেন।
আলোচনায় অংশ নিয়ে সরকার দলের অন্য সদস্যরা বলেন, সাহসী ও সময়োপযোগী এ বাজেট বাস্তবায়ন করে বাংলাদেশকে উন্নত সমৃদ্ধ দেশে পরিণত করার দিকে আরো এগিয়ে যাবে।
তারা বলেন, শেখ হাসিনা দেশ পরিচালনায় সর্বক্ষত্রে শতভাগ সাফল্য অর্জন করে বিশ্বের কাছে উন্নয়নের রোল মডেল হিসেবে বাংলাদেশকে প্রতিষ্ঠিত করেছেন। বিশেষ করে ১৩ বছরে এ সরকারের দেয়া সব বাজেট গড়ে ৯১ ভাগের বেশী বাস্তবায়ন করা সম্ভব হয়েছে। এ বাজেটও সফলভাবে বাস্তবায়িত হবে।
তারা বলেন, বিশ্ব ব্যাংকের রক্তচক্ষুকে তোয়াক্কা না করে নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মাসেতু সেতু নির্মাণ করে বিশ্বকে চমকে দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। ২৫ জুন এ সেতু উদ্বোধনের মাধ্যমে জনগণের দীর্ঘ দিনের স্বপ্ন সফল হতে যাচ্ছে।
আলোচনায় অংশ নিয়ে সরকারি দলের সদস্যরা আরো বলেন, বৈশ্বিক মহামারীর সংক্রমণের সাথে সাথে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সময়োচিত পদক্ষেপের ফলে সফলভাবে করোনা মোকাবেলা করা সম্ভব হয়েছে। তার বলিষ্ঠ ও দূরদর্শী পদক্ষেপে দেশের আর্থ-সামাজিক কর্মকা- সচল রেখে উন্নয়ন অগ্রগতি সচল রাখা সম্ভব হয়েছে। তাঁর সাহসী পদক্ষেপ বিশ্বে প্রশংসিত হয়েছে।
তারা বলেন, করোনাকালে বিশ্বের প্রায় সব দেশের জিডিপি প্রবৃদ্ধি নেতিবাচক। আর বর্তমান সরকারের পদক্ষেপের ফলে বাংলাদেশে জিডিপি প্রবৃদ্ধি ৫.২ শতাংশ অর্জন করা সম্ভব হয়েছে। আগামী অর্থ বছরে প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্রা ৭.৫ নির্ধারণ করা হয়েছে। বিশেষ করে ক্ষতিগ্রস্ত আর্থ-সামাজিক অবস্থার পুনরুদ্ধারে ২৩টি খাতে প্রণোদনা প্রদান করার ফলে এটা সম্ভব হয়েছে।
তারা বলেন, গত ১৩ বছরে উন্নয়নের ধারাবাহিকতায় বাংলাদেশ এখন বিশ্বে উন্নয়নশীল দেশে উন্নীত হওয়ার যোগ্যতা অর্জন করেছে। দেশের জিডিপির আকার বেড়ে ৩৫০ বিলিয়ন ডলারে উন্নীত হয়েছে। মাথাপিছু আয় পাকিস্তানের দ্বিগুণ, আর ভারতের চেয়ে বেশী।
তারা দেশ থেকে পাচার হওয়া অর্থ ফেরৎ আনার ব্যবস্থা করার আহবান জানিয়ে বলেন, বর্তমান পরিস্থিতিতে মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে হবে।

বাংলাদেশ সময়: ২৩:৪১:০৭   ২৪ বার পঠিত  




পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)

ছবি গ্যালারী’র আরও খবর


সরিষাবাড়ীতে সাম্প্রতিক বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত বন্যার্তদের মাঝে ত্রাণসামগ্রী বিতরণ
পদ্মা সেতু কোরবানিকেন্দ্রিক অর্থনীতিতে ব্যাপক প্রভাব ফেলেছে : মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী
ওডেসার আবাসিক ভবনে ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে ১৭ জন
নিউইয়র্কে বাংলাদেশ-যুক্তরাষ্ট্র গোলটেবিল বৈঠক
উন্নয়নের দিশারী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা - নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী
ঐশ্বরিয়ার সঙ্গে রোমান্স করাটা ভাগ্যের ব্যাপার
সুনামগঞ্জে বন্যায় ১৮০০ কোটি টাকার ক্ষতি
সুইডেন-ফিনল্যান্ডের ন্যাটোয় যোগদান ‘ঐতিহাসিক’
শ্রীলঙ্কাকে দশ উইকেটে হারাল অস্ট্রেলিয়া
ফেরিতে ভয়ঙ্কর জার্নি, অসুস্থ হয়ে পড়েছেন বাংলাদেশি ক্রিকেটাররা

আর্কাইভ